Saturday, March 2, 2024
Home অর্থনীতি পলিটেকনিক ভর্তি নীতিমালা ২০২০ আত্মঘাতী এবং সুপরিকল্পিত

পলিটেকনিক ভর্তি নীতিমালা ২০২০ আত্মঘাতী এবং সুপরিকল্পিত

কুমিল্লা৭১নিউজ ডট.কমঃ

 

পলিটেকনিক ভর্তি নীতিমালা ২০২০ আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত ? নাকি একটি বৃহৎ স্বার্থকে সফল করার জন্য পরিকল্পিত উদ্দেশ্য?
আমার দাবি
১ম দাবি : পলিটেকনিক শিক্ষার্থীদের ভর্তির যোগ্যতা 2.5 এবং গণিতের ক্ষেত্রে ছেলে-মেয়ে উভয়ের জন্য 3.00 পয়েন্ট করে দেয়া হোক এতে করে পলিটেকনিকেল এর আসন সংখ্যা আর খালি থাকবে না ।
আমার জানামতে পলিটেকনিকেলের কিছুকিছু সাবজেক্টে এবং টিটিসিতে অনুমোদিত প্রায় প্রতিটি ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সে অর্ধেকের চেয়েও বেশি সিট খালি থাকে, তাই বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের কে কারিগরি ভাবে দক্ষ করতে এবং মূল শিক্ষার 30% কারিগরি শিক্ষায় দক্ষ করতে ভর্তির যোগ্যতা শিথিল করা যেতে পারে, এতে করে শিক্ষার্থীদের মধ্যে কারিগরি শিক্ষার প্রতি আগ্রহ বৃদ্ধি পাবে এবং গ্রামের ছেলেরা বেশি বেশি চান্স পাবে।

২য় দাবী : বয়সের ক্ষেত্রে বিগত ৪ বছর অর্থাৎ ২০১৯ সালের নীতিমালা অনুযায়ী ভর্তি করানো হোক।
যদি বয়স শিথিল করে যেকোনো বয়সী শিক্ষার্থী দের কে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সে ভর্তি করানো হয় তাহলে এটা আর ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স থাকবে না, এটা হবে উন্মুক্ত শিক্ষা , পরীক্ষা হবে ক্লাস হবে না, রেজাল্ট হবে কর্মদক্ষ ইঞ্জিনিয়ার পাওয়া যাবে না।
ঠিক তেমনি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শৃঙ্খলা বিঘ্ন হবে অধিক বয়সে শিক্ষার্থীদের সাথে নিয়মিত শিক্ষার্থীদের বন্ধুসুলভ সম্পর্ক ঘরে উঠবে না শিক্ষাঙ্গন পরিপূর্ণ পরিবেশ পাবেনা।
৩য় দাবী : আসন খালি থাকা সাবজেক্ট গুলোর কর্মক্ষেত্র তৈরি করুন অথবা বন্ধ করুন।
পরিকল্পনা ব্যতীত বুক ভরা স্বপ্ন দিয়ে ভর্তি করানোরছে অসংখ্য বেকারত্ব দূর করুন।
৪র্থ দাবি : প্রথম শিফটের নাই দ্বিতীয় শিফট এর জন্য শিক্ষকদের বেতন ভাতা বৃদ্ধি করা হোক অথবা দ্বিতীয় শিফট এর জন্য আলাদা শিক্ষক কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়োগ করে শিক্ষার মান ত্বরান্বিত করা হোক।

আমার ব্যক্তিগত মতামত একটি দেশকে কারিগরি ভাবে কর্মদক্ষতা বৃদ্ধি করতে পলিটেকনিক শিক্ষার বিকল্প নেই এটা যেমন চিরন্তন সত্য বাস্তব কথা ঠিক তেমনি সেই শিক্ষার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের পাশ করার পরে কর্মক্ষেত্র তৈরি করার জন্য সরকারের সদিচ্ছা এবং সহযোগিতা প্রয়োজন। কিন্তু বাস্তবিক অর্থে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা চলছে কলুর বলদ অথবা অন্যের বিধবা বউ সকলের ভাবী হওয়ার মত।
কলুর বলদ যেকোনো চাষের জমিতে দৌড়াতে বাধ্য ঠিক তেমনি গরীবের বিধবা বউ পেটের দায়ে সকলের ভাবি হতে বাধ্য।
বাংলাদেশ চার বছর মেয়াদি ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপ্লোমা টেকনোলজিস্ট ডিপ্লোমা ফিশারিজ ডিপ্লোমা আর্টস ডিপ্লোমা কম্পিউটার ইনস্টিটিউট এবং ডিপ্লোমা টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট নামে যতগুলো সরকারি এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠান চালু করা হয়েছে এবং সেই প্রতিষ্ঠানগুলোতে যতগুলো আসন চালু করা হয়েছে সেই অনুযায়ী প্রতি বছর ভর্তি এবং চার বছর শেষে সার্টিফিকেট প্রদানের পরে সেই শিক্ষার্থী গুলো কি করছে আদো কর্মসংস্থান হয়েছে কি সেই চিন্তা কি আমাদের নীতিনির্ধারক পর্যায়ে পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে?
চলুন আলোচনা করি বিস্তারিত:
হাতে কলমে শিক্ষা নিলে বাস্তবে কর্ম মিলে !
কারিগরি শিক্ষা নিন দেশের উন্নয়নে অংশ নিন।
এইরূপ স্লো গান দিয়ে বাংলাদেশের হাজারো পরিবার এবং হাজারো শিক্ষার্থীদের কে প্রতিবছর বুক ভরা আশা নিয়ে পলিটেকনিকেলে ভর্তি করানো হয়।
সিদ্ধান্ত হয় সরকারের সর্বোচ্চ মহল থেকে দেশের উন্নয়নে কারিগরি শিক্ষার প্রতি জোর দেয়া হোক। কারিগরি শিক্ষার প্রতি জোর দেওয়া হয় কিন্তু বাস্তবে নয়।
মাননীয় নীতিনির্ধারক গন কর্মমুখী শিক্ষা বলে পলিটেকনিকেলে কিছু কিছু সাবজেক্ট খোলা হয়েছে যেগুলো থেকেই পড়াশোনা শেষ করে ভালো রেজাল্ট করেও এখন পর্যন্ত কোনো সরকারি চাকরির নিয়োগ হয় নাই, তাহলে কারিগরি বোর্ডের অধীনে এসকল প্রতিষ্ঠানগুলো চালু করার মানে কি ? আদৌ কি চিন্তা করেছেন? এই অচল সাবজেক্ট গুলো থেকে পাশ করে এই ছেলেমেয়েগুলো এখন কি অবস্থায় আছে আমার মতে বর্তমান ২০২০ শিক্ষাবর্ষের নীতিমালায় যদি ওই সাবজেক্ট গুলোর পড়াশোনা শেষে চাকরির ক্ষেত্র তৈরি করা না যায় তাহলে সেই সাবজেক্ট গুলো বন্ধ করে দিন বেকারত্ব থেকে মুক্তি দিন।
এম রুবেল হোসেন
সাবেক শিক্ষার্থী মেকানিক্যাল ডিপার্টমেন্ট , কুমিল্লা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট।

নিউজটি শেয়ার করুন -

আজকের জনপ্রিয়

কুমিল্লা ক্রীড়া সংস্থা পরিদর্শন করেন ক্রীড়া পরিষদের সচিব আমিনুল ইসলাম

কুমিল্লার কথা : কুমিল্লা জেলা ক্রীড়া সংস্থা পরিদর্শন করেন জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের সচিব মো: আমিনুল ইসলাম, এনডিসি। শনিবার ( ২৭ জানুয়ারি ) ১১ টায়...

শিক্ষার্থীর হিজাব কেটে দিলেন শিক্ষিকা উত্তাল কুমিল্লা নার্সিং কলেজ

কথা প্রতিবেদক : কুমিল্লার নার্সিং ও মিডওয়াইফারি কলেজের তিন শিক্ষার্থীদের হিজাব কেটে দিয়েছেন অত্র কলেজেরই সিনিয়র শিক্ষিকা মিরন নাহার। এ ঘটনায় ক্ষোভে ফেটে পড়েন...

নীতি, আদর্শ ও সততার লড়াইয়ে এবারও বিজয়ী হবেন এমপি বাহার

দেলোয়ার হোসেন জাকির : দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আর মাত্র কয়েকদিন পরেই। এবারের এই দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের সদস্য...

৭ জানুয়ারী ভোটে প্রমাণ করতে হবে এই কুমিল্লা শেখ হাসিনার- এমপি বাহার

কুমিল্লার কথা :  কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার এমপি বলেছেন, সেই ১৯৮৪ সালে পৌর নির্বাচনে দুইটি ওয়াদা...
নিউজটি শেয়ার করুন -